ইন্টারনেট এবং প্রযুক্তির প্রসার যেভাবে বাড়ছে, প্রযুক্তির ব্যবহারে মানুষের অভ্যাস যেভাবে পরিবর্তিত হচ্ছে দিনেদিনে যে কোন অনলাইন ব্যবসারই পরিধি এবং চাহিদা বাড়ছে তাতে কোন সন্দেহ নেই। তবে সকল উদ্যোগই কি শেষপর্যন্ত সফলতার মুখ দেখছে? অবশ্যই না! এবং সেরকমটি হওয়ারও কথা না। তারপরও অধিকাংশ নতুন ই-কমার্স উদ্যোগ ঝরে পরার পিছনে বেশ কিছু কমন ফ্যাক্টর কাজ করে।
 

  • অনেক তরুন অনলাইন ব্যবসার ব্যাসিক না জেনেই মাঠে নেমে পরছেন। অনলাইন ব্যবসায় নূন্যতম যে অনলাইন/ডিজিটাল জ্ঞান থাকা প্রয়োজন সেটি প্রথমে আয়ত্ব করতে হবে। প্রথমে বুঝতে হবে অনলাইনে ব্যবসা করা আসলে পণ্য বিক্রি করা না বরং এটি একটি সার্ভিস। যে ভাল সার্ভিস দিতে পারবে এই ব্যবসায় সেই টিকে থাকবে। হুজুগে অনলাইন ব্যবসায় নামা, দ্রুত লাভের চিন্তা করার মানসিকতা অনেকটা এমএলএম বা শেয়ার ব্যবসার দিনগুলোর কথা মনে করিয়ে দেয়!

 

  • তাড়াহুড়া না করে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার অভাব। মাঠে নামার পূর্বে কি ব্যবসা করবেন, সোর্সিং কিভাবে করবেন, সেই পণ্যের চাহিদা কেমন, টার্গেট কাস্টমার কারা, চ্যালেঞ্জগুলো কি, রিস্ক অ্যানালাইসিস, কম্পিটিটর অ্যানালাইসিস সহ যাবতীয় মার্কেট অ্যানালাইসিস সময় নিয়ে করতে হবে। তারপর পুরো ব্যবসাটি এক্সিকিউট করার সঠিক এবং সময়োপযোগী পরিকল্পনা করে আগাতে হবে।

 

  • অধিকাংশ তরুনরা অপটিমাইজড প্রোডাক্ট সোর্সিং করতে পারেন না। কোয়ালিটি ঠিক রেখে সবচেয়ে কম দামে প্রোডাক্ট সোর্সিং করা চাট্টিখানি কথা না। সেজন্য অনেক নেটওয়ার্কিং এবং মাঠেঘাটে দৌড়াদৌড়ি করতে হবে। ফার্স্ট হ্যান্ড সোর্সিং এর দিকে মনোযোগ দিন, নতুবা প্রফিট মার্জিন ধরে রাখতে পারবেন না। চাহিদা এবং যোগানের ভারসাম্য রাখতে হবে। নিজে পণ্য উৎপাদনের চেষ্টা বা নিজে ডিরেক্ট ইমপোর্ট করার চিন্তা কয়জনে করছেন?

 

  • ব্যবসার niche বুঝার চেষ্টা করুন, ছোট কিন্তু সম্ভাবনাময় সেক্টর নিয়ে কাজ করুন। বেশিরভাগকেই দেখি জামা, জুতা, ইলেকট্রনিক্স, কসমেটিক্স, গিফট, গ্যাজেট ইত্যাদি সব কিছুর ব্যবসা একবারে শুরু করতে চান। তা না করে বরং একটি অংশ নিয়ে শুরু করুণ। আপনি যদি বরিশাল থাকেন, শুরুতে বরিশাল কেন্দ্রিক ব্যবসার চিন্তা করুন। বরিশালে ব্যবসাটি একটু স্টাবল করুন আগে, নিজের ছোট একটি ব্রান্ড ভ্যালু তৈরী করুণ, পরে অন্য অঞ্চলে মুভ করুন। অধিকাংশ তরুনদের দেখি খালি মার্কেটপ্লেস কনসেপ্টে ব্যবসা করতে চান, মার্কেটপ্লেসের আদলে ওয়েবসাইট সাজাতে চান। মার্কেটপ্লেস অনেক বিশাল একটা ব্যাপার, বিগ বাজেট এবং প্রোপার ম্যানেজমেন্ট ছাড়া মার্কেটপ্লেসের চিন্তা করা বোকামি একথা অনেকেই বুঝতে চান না।

 

  • মার্কেটিং এর জন্য অতিরিক্ত ফেসবুক বা ফেসবুক পোস্ট বুস্টের উপর নির্ভরতা থাকা মোটেই দীর্ঘমেয়াদে ভাল কিছু না। তার চেয়ে বরং কাস্টমার রিলেশনের উপর জোড় দিন, কাস্টমারদের ডেটাবেইজ তৈরি করুন। স্যাটিসফাইড কাস্টমার নিজেই আপনার মার্কেটিং করে দিবে। রিটার্নিং কাস্টমারকে বাড়তি খাতির করুণ। ইমেইল মার্কেটিং সবচেয়ে সস্তা মার্কেটিং টুল, কিন্তু কজনে সেটি চিন্তা করে? অফলাইন মার্কেটিং এ যেতে অনেকের অনীহা দেখি। আপনি যে অনলাইন ব্যবসা করছেন আপনার পরিবারের সদস্য সবাই কি জানে? আপনার প্রতিবেশি জানে?

overnight success

  • অনলাইন ব্যবসাকে অনেকেই সহজ মনে করেন। কিন্তু যে কোন রিটেইল ব্যবসার চেয়ে অনলাইন ব্যবসা সত্যিকার অর্থে আরো কঠিন। মার্কেট অ্যানালাইসিস, প্রোডাক্ট সোর্সিং থেকে শুরু করে ওয়েবসাইট প্রোপারলি ম্যানেজ করা, মার্কেটিং করা, অপারেশন্স সব গুলো সাইডের সঠিক সমন্নয় ছাড়া সফলতা অসম্ভব। অর্ডার ফুলফিলমেন্ট একটি প্রক্রিয়া যা সঠিকভাবে অনেকেই ফলো করেন না। অনলাইনে ব্যবসার গতিবিধি, সাপ্লাইচেইন, এঙ্গেজমেন্ট, ফিডব্যাক, লাভক্ষতি ইত্যাদি সবসময় পর্যবেক্ষণ করতে হয়, সেই অনুযায়ী স্ট্রাটেজি বদলাতে হয়, নতুনত্ব যোগ করতে হয় যা অনেক চ্যালেঞ্জিং।

 

  • অনলাইন ব্যবসায় রকম অনুযায়ী বেশ ভাল অংকের বিনিয়োগের প্রয়োজন। আপনার ব্যবসার ধরণ অনুযায়ী একটি ব্রেকইভেন পয়েন্ট সেট করে নিয়মিত বিনিয়োগ করে যেতে হবে, তাও দীর্ঘমেয়াদে। স্বল্পমেয়াদে অল্প বিনিয়োগে লাভের আশা আজকের বাজারে করে খুব একটা সুবিধা হবেনা। বিনিয়োগ করতে হবে নিজের ব্রান্ড প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে, আপনার সার্ভিসটিকে নির্ভরযোগ্য প্রমাণ করতে। তাই সেই পরিমান মূলধন বা দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগের আগ্রহ না থাকলে এই ব্যবসা করার ঝুঁকি না নেয়াই ভাল।

 

  • আর এই সবকিছুর পরও অনলাইন ব্যবসায় আগ্রহী অনেকের মাঝে পড়া এবং শেখার আগ্রহ কম দেখা যায়। জীবনে সফলতার জন্য শর্টকাট বলে কিছু নেই! অনলাইন ব্যবসা, নতুন টেকনোলজি, মার্কেটিং কৌশল, দেশের অর্থনীতি, বিশ্বের অর্থনীতি, রাজনীতি, বাজেট সব কিছু নিয়েই পড়তে হবে এবং শিখতে হবে। আর যেটা লাগবে তা হলো ধৈর্য্য।

 

অনলাইন ব্যবসায় সফল হতে হলে চাই সতর্কতা এবং সচেতনতা। ধৈর্য্য ধরে পরিকল্পনা করে একটু একটু করে আগানোর চেষ্টা করুণ। আপনার বিনিয়োগ এবং ব্যবসা দুই এক বছর না বরং দীর্ঘমেয়াদে চিন্তা করুণ। কাস্টমারের জন্য বেস্ট সার্ভিস নিশ্চিত করতে যা যা করণীয় করতে হবে, সার্ভিসের মাধ্যমে নিজের একটি ব্রান্ড আইডেনটিটি তৈরির চেষ্টা করুণ। জেনে বুঝে লেগে থাকলে সফলতা আসবেই। সবার জন্য শুভকামনা রইলো।

 

নিজের একটি অনলাইন ব্যবসা হোক আজই

(Visited 908 times, 1 visits today)
1

Comments