হাজারো মানুষ প্রতিদিন আপনার সাইটে ঢুকছে আর আপনি ক্রেতা পাচ্ছেন দৈনিক ৭ জন? এটা নিয়ে আপনার মন খারাপ? আপনি কি চিন্তিত? ভাবছেন সাইটের কোন পয়েন্টে গিয়ে সবাই ট্যাব ক্লোজ করে দিচ্ছে? আপনার একটা ক্লিক দূরত্বে বসে থাকা দুনিয়ার সবচেয়ে দক্ষ Artificial Intelligence এর সাহায্য নেবার কথা ভেবে দেখেছেন? জি, গুগলের কথাই বলছি। আপনার এই সমস্যার জন্য আছে Google Analytics.

অনেক ই-স্টোর মালিকদের কাছে Google Analytics নতুন কিছু না। অনেকেই এটা ব্যবহার করে সাইটে কখন কোন পেইজে কতজন মানুষ আসছে প্রতিদিন সেটা বের করেন। অনেকেই যেটা জানে না সেটা হল,আপনি এই সফটওয়্যার ব্যবহার করে মানুষ আপনার সাইটের কোথায় ক্লিক করছে সেটাও দেখতে পারবেন। বুঝতে না পারলে বলি, আপনার যদি ফেসবুকে কোন পোস্ট ভালো লাগে তাহলে আপনি সেটার লাইক অপশনে কারসর নিয়ে ক্লিক করেন। তেমনি আপনার প্রোডাক্টের ছবি ভাল লাগলে মানুষ সেটায় ক্লিক করবে, নাহলে সাইট লিভ করবে। সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে আপনি কোথায় কারসর মুভমেন্ট বেশি হচ্ছে সেটা দেখতে পারবেন আর সেটা আপনাকে বলে দিবে সাইটের কোন পয়েন্ট থেকে কাস্টমাররা চলে যাচ্ছে।

আপনার জন্য বুদ্ধিমানের কাজ হবে একটা Conversion or Sale Funnel তৈরি করা। এটা কি? আর কেনই বা এটা সেট আপ করবেন আপনি?

সাইটের হোমপেজে হিট সবচেয়ে বেশি হবে এটা তো বুঝতেই পারছেন। এখানে এসে যদি ক্রেতা যা খুজছেন সেটা পেয়ে যান তাহলে পেজে থাকবেন তা নাহলে চলে যাবেন। প্রোডাক্ট ডিটেইলস, চেকআউট- এধরনের পেজ গুলোতে ক্রমশ হিট কাউন্ট কমতে থাকবে।

আপনি যদি এমন একটি ফানেল তৈরি করে নিতে পারেন তাহলে প্রতিটি স্টেজে কয়জন করে ভিজিটর হারাচ্ছেন সেটা সহজেই ধরতে পারবেন। ফানেল সেট আপ করার পর আপনার হাতে আসবে পাওয়ার অফ ইনফরমেশন। কি সেই ইনফরমেশন?

  • ঠিক কোন জায়গায় এসে ভিজিটররা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে
  • কতজন কাস্টমার হারাচ্ছেন
  • ঠিক কোন জায়গায় ইমপ্রুভমেন্ট দরকার

আপনার কোন ধরনের ফানেল দরকার?

সফলতার পূর্বশর্ত হল আপনার একটি লক্ষ্য থাকতে হবে যেটা পূরণ করার জন্য আপনি পরিশ্রম করবেন। গুগলের ভাষায় এটাকে বলে “Goal”। ফুটবলে গোল যেমন মাঠের শেষ সীমানায় গিয়ে দিতে হয়, এখানেও গোল সেরকমই। আপনি কাস্টমারদের শেষ ক্লিকটি যেখানে পড়তে দেখতে চান সেটাই আপনার গোল। আপনি কয়টা গোল দিচ্ছেন সেটাই আপনার সাইটের সফলতা নির্ধারণ করবে। আপনার গোল কাউন্ট করার কাজটি সহজ করে দিচ্ছে গুগল।

গুগল আপনাকে চার ধরনের গোল তৈরি করতে দিবে, Destination, Time on site, Pageviews per visit , Event অনলাইন স্টোর মালিক হিসেবে প্রথমটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এক্ষেত্রে আপনি ফাইনাল পেজ বা চেকআউট পেজটাকে ডেসটিনেশন হিসেবে রাখতে পারেন। আপনার সাইটে যদি প্রোডাক্ট রিলেটেড কোন ভিডিও থাকে অথবা অনেক ঝকমকে ছবি, বা বিশাল বর্ণনা, সেক্ষেত্রে আপনি একটি টাইম অন সাইট গোল সেট করতে পারেন। আপনার লিমিট যদি ১০ মিনিট থাকে, আপনি জানতে পারবেন কয়জন ১০ মিনিট ধরে আপনার পেজে আছে বা তার আগেই চলে যাচ্ছে। ১০০% সঠিক ডাটা পাবেন না এক্ষেত্রে কারণ অনেকেই আছেন যারা আপনার সাইটের ট্যাব খোলা রেখে অন্য কিছু করছেন। যেই রেজাল্ট আসবে তার থেকে কিছু কমিয়ে চিন্তা করবেন সব সময়।

গুগল আপনাকে ২০ ধরনের ফানেল তৈরি করতে দেবে যদি আপনার প্রিমিয়াম একাউন্ট না থাকে। আমি আপনাকে কিছু উদাহরণ দেইঃ

  • প্রোডাক্ট পেজ>কাস্টমাইজেশন>অ্যাড টূ কার্ট>বিলিং>চেক আউট
  • অ্যাড টু কার্ট>এড্রেস>বিলিং>চেকআউট

funnel

এখন প্রশ্ন হল আপনি কিভাবে ডাটা এনালাইসিস করবেন? থিওরেটিকাল উত্তর না দিয়ে আমি চেষ্টা করব আপনাকে একটি বাস্তব উদাহরণ দিয়ে ক্লিয়ার করতে।নিচের ছবিটি দেখুনঃ

গুগল খুব সহজ করেই আপনার জন্য সবকিছু রেডি করবে। ছবিটি একটি অনলাইন বুকস্টোরের কনভারশন ফানেল। একনজর দেখলেই বুঝতে পারবেন ১০.২১৪ জন শপিং কার্টে প্রবেশ করছেন আর ১২৪৪ জন সেটাও করছেন না(লাল আর সবুজ ফলো করুন)। শপিং কার্ট সেকশনে হিট কাউন্ট ১০,২১৪ আর বিলিং ইনফরমেশনে কাউন্ট ৫৭৭৩, অর্থাৎ ৫০% এর মত ভিজিটর বিলিং সেকশন পর্যন্ত আসেই নি। আপনি গুগলকে বিনা পয়সায় হিসাব নিকাশের চাকরি দিয়ে সাইটটিকে আরো ডেভেলাপ করার দিকে মন দিন।

analytics_funnel

 

বেনিফিট অফ ইনফরমেশন সবাই নিতে পারে না। আপনাকে অবশ্যই বিচক্ষণতার সাথে গুগলের দেয়া তথ্য কাজে লাগাতে হবে।আপনি যদি দেখেন হোম পেজ থেকেই ভিজিটররা চলে যাচ্ছে তাহলে আপনার উচিত হবেঃ

  • প্রোডাক্ট পাল্টে ফেলা

  • প্রোডাক্ট ডেসক্রিপশন ঠিক করা। বোরিং কথাবার্তা রাখবেন না

  • দাম কমিয়ে দেয়া

এছাড়া আপনি যেটা করতে পারেন সেটা হল পপ-আপ ব্যবহার। WebEngage এক্ষেত্রে আপনাকে সহায়তা করতে পারে। কিন্তু এটাও মাথায় রাখবেন যে পপ আপ হার্ট দুর্বল মানুষদের পছন্দ না আর অনেক নরমাল মানুষও পপ আপে বিরক্ত হন। কিন্তু ডিসকাউন্ট সহ পপ আপ দিতেই পারেন। একটি বিশেষ গোষ্ঠীর কাস্টমাররা ডিস্কাউন্ট দেখলে বেশ খুশি হন।

 

এবার আপনি কার্ট থেকে ঝরে পড়া কাস্টমারদের হাতে রাখতে চান। এক্ষেত্রে করনীয়ঃ

  • প্রোডাক্টের সাথে সব চার্জ ইনক্লুডেড রাখবেন। হিডেন চার্জ খুবই বিরক্তিকর।
  • ফ্রি শিপিং দেয়ার চেষ্টা করতে পারেন।
  • রেজিস্ট্রেশন ছাড়া চেকআউট করার অপশন রাখতে পারেন।
  • ক্যাশ অন ডেলিভারি সিস্টেম রাখুন।আপনার পণ্যের উপর প্রথমেই হয়ত কাস্টমার ভরসা করতে পারছেন না বা অনলাইন পেমেন্টে আগ্রহী হবে না।

 

সব কথার শেষ কথা Google Analytic আপনার জীবন অনেক সহজ করে দিচ্ছে। গুগলের দেয়া ইনফরমেশন অনুযায়ী আপনার সাইটটিতে যা যা পরিবর্তন আনা উচিত বলে মনে করেন সেগুলো করে ফেলুন। অনেক পরিশ্রম করার পরও আশাজনক ফল না পেলে সবারই খারাপ লাগে। খারাপ লাগা নিয়ে বসে না থেকে আজই কাজে নেমে পড়ুন আর সেলস বাড়িয়ে দিন পকেটের পয়সাকড়ি খরচ ছাড়াই। আর আপনার যদি এতোই দুর্বোধ্য মনে হয় Google Analytics এর ব্যাপার স্যাপার তবে কোন বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিন। Storrea তে অনলাইন স্টোর খুললে আপনি সহজেই পারবেন নিজের অনলাইন স্টোর এর সাথে Google Analytics অ্যাকাউন্ট কানেক্ট করার সুযোগ।

 

চাই নিজের পরিপূর্ণ অনলাইন স্টোর

 

(Visited 491 times, 1 visits today)
2

Comments