ইকমার্স ব্যবসার এই সুবর্ণ সময়ে যারাই অনলাইন বাণিজ্যের স্বপ্নিল পথে পা দিতে যাচ্ছেন, তাদের সবাই প্রথমেই যেই বিষয়টি নিয়ে অত্যধিক চিন্তিত হয়ে পড়েন তা হলো কিভাবে নিজের ইকমার্স ওয়েবসাইটটি তৈরি করবেন। হাতে প্রোডাক্ট আছে, আছে সব রকম লজিস্টিকস সুবিধারও যোগাড়। কিন্তু অনলাইনের যে ব্যবসা, তার প্রাথমিক উপকরণ নিজের একটি ইকমার্স ওয়েবসাইট তো থাকা চাই হাতে।

ইকমার্স ওয়েবসাইট বানানোর সময় আপনার হাতে আছে বেশ কয়েকটি অপশন। Storrea ও বাংলাদেশে এমন সমস্যার সমাধান নিয়েই হাজির হয়েছে। যাকে আমরা টেকনিক্যাল ভাষায় বলি E-commerce Platform। এখানে খুব সহজেই আপনি নিজের ইকমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করে নিতে পারবেন খুবই অল্প সময়ে। নিজের ডোমেইনটিও ইন্টিগ্রেট করা যায় নির্ঝঞ্ঝাট ভাবে।

Woocommerce হল WordPress এর একটি বহুল জনপ্রিয় প্লাগইন যা অনেকটা ইকমার্স প্ল্যাটফর্ম হিসেবেই কাজ করে। দেশি স্বাদের দেশি সেবা নিয়ে আসা Storrea র সাথে এর তফাৎটি কোথায় আসলে? কোনটি সহজ সমাধান? কোনটি তাদের জন্য সঠিক সমাধান? এই প্রশ্নের উত্তর আপনি নিজেই দিতে পারবেন। উত্তর দেয়ার আগে আসুন পড়ে নেই নিচের তুলনামূলক পর্যালোচনাটি। সিদ্ধান্ত নিতে বোধকরি সুবিধা হবে তখন।

Storrea vs. Woocommerce:  ওয়েবসাইট হোস্টিং

ওয়েবসাইট ডোমেইন কেনার পর প্রথমেই আপনাকে চিন্তা করতে হবে কোথায় ওয়েবসাইট হোস্ট করবেন? Woocommerce দিয়ে তৈরি Website এর ক্ষেত্রে এই সমস্যাটি নিজেকেই সমাধান করতে হবে কোন একটি ডোমেইন হোস্টিং প্রোভাইডার কোম্পানির সহায়তা নিয়ে। ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা ও হোস্টিং এর সমস্ত দায়দায়িত্ব নিজেকেই ম্যানেজ করতে হবে। যেহেতু হোস্টিং সার্ভিসটি থার্ড পার্টির কাছ থেকে নিতে হবে, খরচ এর ব্যাপারটিও মাথায় রাখতে হবে। সার্ভিসের প্রকারভেদে একটি Woocommerce দিয়ে তৈরি ইকমার্স সাইট হোস্টীং এর জন্যে বিভিন্ন ধরনের প্যাকেজ আছে। কেমন ধরনের স্টোরেজ চান, কিরকম স্পীড চান এই ধরনের কিছু ক্রাইটেরিয়ার উপর নির্ভর করে আপনি চাইলে শেয়ারড হোস্টিং অথবা ডেডিকেটেড হোস্টিং নিতে পারেন যার জন্য খরচ পড়বে ৫,০০০ টাকা – ২৫,০০০ টাকা।

অন্যদিকে, Storrea একটি হোস্টেড প্ল্যাটফর্ম। এখানে স্টোর খোলার সাথে সাথেই সেটি Storrea Server এ হোস্টেড হয়ে যায়। তাই হোস্টিং এবং ব্যান্ডউইডথ এর জন্যে বাড়তি কোন খরচের দরকার পড়বেনা। হোস্টিং এবং ব্যান্ডউইডথ স্টোরিয়াতে সম্পূর্ণ ফ্রি। স্টোরেজ নির্ভর করবে আপনি কতগুলো প্রোডাক্ট এবং প্রোডাক্টের ইমেজ আপলোড করবেন তার উপরে। বিভিন্ন প্যাকেজে বিভিন্ন রকমের সীমা দেওয়া আছে। এর বাইরেও চাইলে নিজের প্রয়োজনমত স্টোরেজ বাড়িয়ে নেওয়া যায়।

storrea_pricing

Storrea vs. Woocommerce:  ওয়েবসাইট ডিজাইন ইস্যু

ওয়েবসাইটের লুক এন্ড ফিলই হল ওয়েবসাইটের প্রথম কথা। প্রথমে দর্শনধারী তারপর গুণবিচারী। প্রথম দর্শনেই অনেক অনলাইন ক্রেতা মুগ্ধ হয়ে যান আপনার সাইট দেখে। ঝুঁকে থাকা মন তার অজান্তেই কিনে নেয় পছন্দের কোন এক পণ্য। চলুন দেখে নেই কে কিভাবে তাদের ডিজাইন ইস্যুগুলোর সমাধান দিয়েছে।

কিভাবে Woocommerce দিয়ে স্টোরফ্রন্ট সাজাবেন?:

Woocommerce হল WordPress র একটি প্লাগইন। WordPress এর এই ধরনের হাজারও প্লাগিন আছে। Woocommerce প্লাগিন আপনি ফ্রিতেই আপনার ওয়ার্ডপ্রেসে ইন্সটল করতে পারবেন। কিন্তু এর পরের কাজটিই হচ্ছে জটিল। ফ্রিতে আপনি 5 টি থিম পাবেন, কিন্তু বিভিন্ন থিম বিক্রির মার্কেটপ্লেসে ৫০টির মত প্রিমিয়াম পেইড থিম আছে যেগুলো কিনতে আপনার খরচ পড়বে মোটামুটি এককালীন ৪০০০ টাকা ($50) –  ৯,৬০০ টাকা ($140)।  Wordpress এর Admin Panel থেকে আপনি চাইলে নিজের ইচ্ছেমত থিমের সেটিংসগুলো কাস্টমাইজ করে নিতে পারেন। তবে যদি সেটিংস অপশনগুলোর বাইরে অন্য কিছু পরিবর্তন করতে চান তবে আপনার নিজের PHP, HTML, CSS, Javascript এর জ্ঞান লাগবে অথবা কোন ওয়েব ডেভেলাপারের শরণাপন্ন হতে হবে।

কিভাবে Storrea দিয়ে স্টোরফ্রন্ট সাজাবেন?: 

স্টোরিয়ার অন্যতম একটি আকর্ষনীয় ফিচার হল এর থিম কালেকশন। প্রত্যেকটি থিমই মোবাইল রেস্পন্সিভ এবং আধুনিক বিভিন্ন ইকমার্স ওয়েবসাইটের ডিজাইন অনুসরণ করে বানানো। ইতিমধ্যেই ১০টি থিম রয়েছে স্টোরিয়ার থিম স্টোরে যা বিভিন্ন প্যাকেজ অনুযায়ী ফ্রি কিংবা এককালীন ১৫০০- ৩০০০ টাকার মধ্যে পড়তে পারে। এছাড়াও নিজের ব্র্যান্ডের সাথে মানানসই থিম অনেক সময় চাইতে পারেন অনেকে; সেক্ষেত্রে কাস্টম থিমও বানিয়ে দেয়া হয় ক্রেতার চাহিদা অনুযায়ী যার দাম পড়তে পারে ৫০০০- ১০,০০০ টাকার মধ্যে।

যেহেতু স্টোরিয়া একটি হোস্টেড ইকমার্স প্ল্যাটফর্ম তাই এখানে অনেকেই ইকমার্স সাইট বানাচ্ছেন অথবা বানাবেন। অনেকেই দেখা যায় একই থিম ব্যবহার করছেন।  একটি সাইট যাতে অন্যটির সাথে মিলে না যায় তাই স্টোরিয়া থিমগুলো চাইলে নিজের ইচ্ছামত কাস্টমাইজ করার সুবিধা আছে। আর লেয়াউট কিংবা মেজর কোন চেইঞ্জ যদি লাগে সেক্ষেত্রে স্টোরিয়া টেকনিক্যাল টিম এর সাথে যোগাযোগ করলে সেটিও করে দেয়া হয় বিনামূল্যে কিংবা নামমাত্র মূল্যে। Woocommerce এর মত এখানেও থিমের বিভিন্ন অংশ (যেমনঃ Navigation, Header Menu, Footer, Banner, Social Media Settings, Brand Theme Colour etc. ) Storrea অ্যাডমিন প্যানেল থেকেই কোন টেকনিক্যাল নলেজ ছাড়াই চেইঞ্জ করা যায়।

storrea_themes

এক নজরে স্টোরিয়ার থিমগুলো

 

Storrea vs. Woocommerce:  পেমেন্ট গেটওয়ে ও অন্যান্য ফিচার ইন্টিগ্রেশন

Woocommerce:

Woocommerce ওয়ার্ডপ্রেসের ফ্রি একটি প্লাগইন। এটি ইন্সটল করতে কোন খরচের দরকার পড়বেনা। কিন্তু, Woocommerce দিয়ে পুরোপুরিভাবে অনলাইন বিজনেস পরিচালনার জন্য আপনাকে অনেক Third Party Extensions অ্যাড করে নিতে হবে। এই এক্সটেনশন গুলোর কিছু কিছু হয়তো ফ্রিতে পাওয়া যাবে আবার কিছু অ্যাডভান্সড এক্সটেনশন এর জন্যে খরচ পড়তে পারে বার্ষিক $৫- $১০০ এর মত। Cart settings, Checkout Settings, VAT Congfiguration, Delivery Settings, Product Options এগুলো ম্যানেজ করার জন্যে আলাদা আলাদা ভাবে প্লাগইন ইন্সটল করে নিতে হবে।

পেমেন্ট গেটওয়ে প্লাগইনও নিজের মত করে ইন্সটল করে নেওয়া যায়। ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্ট গেটওয়ে যেমন আছে তেমনই বাংলাদেশী SSLCommerzbKash এর জন্যেও ফ্রি প্লাগইন আছে। যদিও bKash এর এই প্লাগইন Woocommerce এর জন্য কাজ করেনা।

তবে যাই করুন না কেন আপনাকে সবার আগে নিজের ব্যবসার সাথে SSLCommerz ও bKash এর সাথে ব্যবসায়িক চুক্তি করতে হবে অথবা তাদের কাছ থেকে অ্যাকাউন্ট করতে হবে। তারপর প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে এই এক্সটেনশনগুলো কাস্টমাইজ করে নিতে হবে।

Storrea:

Storrea প্ল্যাটফর্মে Cart Settings, Shipping Method, Tax Rate নির্ধারণ, Checkout  Methods এই সব সুবিধাই ইন্টিগ্রেট করা আছে। প্রথমে স্টোর খুললেই এই সুবিধা গুলো পাওয়া যাবে। পেমেন্ট মেথড এর জন্যে কেউ চাইলে স্টোরিয়ার নিজস্ব বিক্যাশ অথবা স্টোরিয়া SSLCommerz গেটওয়ে ব্যবহার করতে পারেন। যদি নিজস্ব ব্যবসার bKash Merchant Account থাকে অথবা SSLCommerz এর থেকে নিজস্ব গেটওয়ে নেয়া থাকে তবে সেটিও কনফিগার করে নেওয়া সম্ভব। এছাড়াও অন্য যেকোন ব্যাংকের সাথে যদি পেমেন্ট গেটওয়ের চুক্তি করা থাকে তবে সেটিও কাস্টম খরচে স্টোরিয়াতে ইন্টিগ্রেট করা সম্ভব।

Storrea vs. Woocommerce:  বিক্রিতে কে কিভাবে সহায়তা করছে

Woocommerce:

Woocommerce যেহেতু একটি ওপেন সোর্স সফটওয়ার তাই এখানে প্রচুর থার্ড পার্টি এক্সটেনশন আছে অনলাইন মার্কেটিং এর জন্যে। ফেসবুক স্টোর অ্যাপ ইন্টিগ্রেশন থেকে শুরু করে ইমেইল মার্কেটিং, স্টোর সাজানোর যাবতীয় গুরুত্বপূর্ণ টুল ও পাওয়া যাবে এখানে। তবে মাঝারি কিংবা বড় কোম্পানির ক্ষেত্রে অনেক সময় দেখা যায় বাইরের কোন সিস্টেমের সাথে তাদের ইন্টিগ্রেশনের দরকার হয়ে পড়ে। এধরনের অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলাপ করা অনেক সময়ই বেশ ঝামেলার ব্যাপার হয়। SEO র জন্যে Woocommerce বিশ্বব্যাপীই বেশ কার্যকরী যেহেতু এটি ওয়ার্ডপ্রেসের উপর তৈরি করা। Facebook এ সেল করার জন্যে, প্রোডাক্ট শিপিং, ভ্যারিয়েশনস, রিভিউ এবং কাস্টমার ম্যানেজমেন্ট এর মত কিছু নিত্য ব্যবহার্য এক্সটেনশন ইন্টিগ্রেট করতে সাবস্ক্রিপশন ফি দিতে হবে।

Storrea:

Storrea তে ইতিমধ্যেই বেশ কিছু অ্যাপ ইন্টিগ্রেট করা আছে যা ইকমার্স ব্যবসায় প্রতিদিনই প্রয়োজন হয়। এইধরনের অনেক অ্যাপ হয়তো আপনাকে Woocommerce এ সাবস্ক্রিপশন ফি দিয়ে কিনে নিতে হবে। এ ধরনের কিছু অ্যাপের একটি লিস্ট দেওয়া হলঃ

  • অটোমেটেড নিউজ লেটার ও ইমেইল মার্কেটিং অ্যাপ
  • ডিসকাউন্ট কোড ম্যানেজমেন্ট
  • আলাদা আলাদা প্রোডাক্টের রিভিউ
  • শিপিং মেথড কনফিগারেশন
  • হরেক রকমের প্রোডাক্ট ভ্যারিয়েশন সংযোজন
  • ফেসবুক স্টোর অ্যাপ ইন্টিগ্রেশন
  • কমপ্লিট কাস্টমার ম্যানেজমেন্ট সল্যুশন
  • থার্ড পার্টি অ্যাপঃ Live chat integration, Google Analytics Integration

এছাড়াও প্রোডাক্ট ক্যাটাগরি লেভেল, প্রোডাক্ট লেভেল SEO র ব্যবস্থা আছে। সহজেই নিজের মত মেটা ডেসক্রিপশন, মেটা টাইটেল, মেটা ট্যাগ সেট করে দেওয়া যায়।

Storrea বনাম Woocommerce: সাপোর্ট পাচ্ছেন তো আপনার সময়মত? 

Woocommerce যেহেতু একটি ফ্রি প্ল্যাটফর্ম তাই তাদের বাঁধা ধরা কোন নিয়ম নীতি নেই। কোন সমস্যায় পড়লে তাদেরকে রিচ করা দুঃসাধ্য ব্যাপার। যদিও হাজার হাজার ফোরাম আছে যেখানে আপনি সাহায্য চাইতে পারেন কিন্তু নিজে থেকেই আপনার সমস্যা আপনাকে সমাধান করতে হবে। তবে সত্যি কথা হল এই যে, Woocommerce এর এই ফোরামগুলতে অনেক সময় অনেক এক্সপার্টরাও সমাধান খুঁজে পেতে হিমশিম খেতে হয়। Storrea তে টেকনিক্যাল এক্সপার্ট রা ২৪/৭ আপনার যেকোন টেকনিক্যাল সমস্যার সমাধান দিতে প্রস্তুত। বাংলাদেশে ইকমার্স ব্যবসার অধিকাংশ অর্ডারই প্লেস হয় সাধারণত রাতের বেলায়। দিনশেষে আপনি যখন আপনার অনলাইন স্টোর নিয়ে বসবেন তখন যেকোন দরকারেই পাবেন স্টোরিয়া টেকনিক্যাল টিমকে। যেকোন পেইড প্যাকেজে এই সুবিধা পুরোপুরি বিনামূল্যে। এছাড়াও স্টোরিয়া অফিসে এসে মার্চেন্ট ভিজিট করে হাতে কলমে শিখে নিতে পারেন অনলাইন স্টোর পরিচালনার খুঁটিনাটি বিষয়গুলি। পাশাপাশি Skype, Phone অথবা ফেসবুক পেইজ অথবা সাইটের লাইভ চ্যাটেও যেকোন সময়ে যেকোন সাহায্য চাওয়া যেতে পারে।

লেখাটি অনেক বড় হয়ে গিয়েছে আসলে দুইটি সিস্টেম এর তুল্যমূল্য বিচার করতে গিয়ে। দিনশেষে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ভার পুরোপুরি আপনরাই। একেক ধরনের ব্যবসার একেক রকম চাহিদা থাকে। আবার একেক জনের Resource ও একেক রকম। আপনার যদি পরিচিত ডেভেলাপার থাকে চেনা গণ্ডির মধ্যে তবে হয়তো অনেক কম খরচে Woocommerce দিয়েই আপনি ওয়েবসাইট তৈরি করে নিতে পারেন। নিজের ব্যবসার উপযোগী সিদ্ধান্তই একজন ব্যবসায়ীকে নিতে হয়। কিন্তু এতো টেকনিক্যাল ব্যাপার স্যাপার ম্যানেজ করতে গিয়ে হয়তো দেখা যায় অনেক সময় মূল যেই কাজ ব্যবসা সেটাতে সময় কম দেওয়া হচ্ছে। তাই সবদিকে চিন্তা ভাবনা করেই সল্যুশনের দিকে আগানো উচিত। তবে এটুকু বলা যায়, Woocommerce এর চেয়ে Storrea অনেক বেশি ইউজার ফ্রেন্ডলি এবং টেকনিক্যাল নলেজও অনেক কম লাগে। নিজে যখন ব্যবসা করছেন তখন আপনি নিজেই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন এক জায়গা থেকেই।

 

নিচে আপনাদের কমেন্ট এ জানাতে পারেন এ আর্টিকেলটির কোন অংশের সাথে আপনি দ্বিমত পোষণ করেন অথবা আপনি সহমত পোষণ করেন।

চাই নিজের একটি ইকমার্স ওয়েবসাইট

 

 

 

(Visited 657 times, 1 visits today)
3

Comments