দিনদিন প্রযুক্তির সম্প্রসারণে আমরা নিকট থেকে নিকটতর হচ্ছি। আর তার ফলাফল হিসেবে আপনার ব্যবসার সম্প্রসারণে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোর সঠিক ব্যবহার আপনাকে যেমন এনে দিতে পারে নিত্যনতুন গ্রাহক, ঠিক তেমনি এর অযাচিত এবং ত্রুটিপূর্ণ ব্যবহার ডেকে আনতে পারে আপনার ব্যবসার সর্বনাশ। চলুন তবে দেখে নিই এমন কিছু বিষয় যেগুলো থেকে কিনা সাবধানে থাকতে হবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

আপনার ব্যক্তিগত এবং ব্যবসায়িক অ্যাকাউন্ট হোক আলাদা

অবশ্যই আপনার ব্যক্তিগত পোস্টগুলো আপনার ব্যবসায়িক অ্যাকাউন্ট থেকে দেবেন না। ব্যক্তি হিসেবে আপনার অনেক পছন্দ অপছন্দ আপনার ব্যবসাকে প্রভাবিত করতে পারে। একবার প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্কে বারাক ওবামা তার দাদীর স্বাস্থ্য সমস্যার কথা তুলে ধরায় কিচেনএইড নামে এক কোম্পানির এক চাকরিজীবি সেটার সরাসরি সমালোচনা করে বসেন কিচেনএইডের অ্যাকাউন্ট থেকেই! পরবর্তীকালে কোম্পানিটি ওবামার কাছে দুঃখপ্রকাশে বাধ্য হয় এবং ওই চাকুরীজীবিকে বিদায় দিয়ে দেয়। আপনি যদি ভালোভাবে লক্ষ্য করেন দেখবেন আমাদের দেশের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীরা অনেকেই কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে অতটা সক্রিয় নন। আপনি ক্রিকেট ফুটবল খেলা নিয়ে মন্তব্য করতে পারেন। কিন্তু রাজনৈতিকভাবে খুব গভীরভাবে না জড়ানোই ভালো।

নয় অকারণে মানুষের ফেসবুক টাইমলাইনে পোস্ট

মানুষের ফেসবুক টাইমলাইনে ব্যবসায়িক বিষয় পোস্ট করার দুটি খারাপ দিক আছে। এক, মানুষটি বিরক্ত হবে। আপনার ব্যবসা আপনার কাছে মূল্যবান হতে পারে কিন্তু তার কাছে সেটির মূল্য নাও থাকতে পারে। দুই, সে টের পেয়ে যাবে আপনি তার অ্যাকাউন্টে ঘোরাঘুরি করছেন পোস্ট দেওয়ার জন্য। এটাকে কোন ভদ্রোচিত ঘটনা হিসেবে নেওয়ার সম্ভাবনা কম। সবশেষে সোশ্যাল মিডিয়া মানুষের ব্যক্তিগত পছন্দ অপছন্দের জায়গা। তার সেই “কম্ফোর্ট জোন” নষ্ট করার অধিকার আপনার নেই।

শেয়ার করার আগে ভাবুন

আজকাল একটা চল হচ্ছে বিভিন্ন রকম হাস্যরসাত্মক পোস্টের, যেগুলোকে “ট্রল” বলা হয়। আপনই হয়ত মজা পেয়ে ঝোঁকের বশেই শেয়ার দিয়ে বসলেন, কিন্তু আপনি ভুলে যাচ্ছেন যে আপনার শেয়ার করা পোস্ট আসলে আপনার মানসিকতার পরিচয়ই বহন করে।

অন্যদের পোস্ট থেকে কপি করা কমিয়ে দিন

ব্লগিং বেশ গুরুত্বপূর্ণ আপনার প্রচার প্রসারের জন্য। কিন্তু অধিক ব্লগিং করার জন্য আপনি অন্যদের কনটেন্ট থেকে কপি পেস্ট করলে সেটি ভালো নিদর্শন বলে গণ্য হবে না। বিশেষ করে যদি তারা টের পেয়ে যায় তখন। আর কপি পেস্টের এই প্রবণতা আপনার বিশ্বাসযোগ্যতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে আপনার ব্যবসার বরং উল্টো ক্ষতিই করতে পারে।

সবাইকে গণহারে ইভেন্টের আমন্ত্রণ জানানো থেকে বিরত থাকুন

ধরুন আপনি ঢাকায় একটি ইভেন্ট আয়োজন করছেন। আপনার দেশের বাইরের মানুষদের অযথাই ইনভাইট পাঠিয়ে তাদের মনে বিরক্তির উদ্রেক করবেন না। বেছে বেছে যাদের আপনার ইভেন্টে উৎসাহ আছে কিংবা যাদের পক্ষে আপনার এই ইভেন্টে অংশগ্রহণ করা সম্ভব তাদেরকেই ইভেন্টের আমন্ত্রণ জানান।

হ্যাশট্যাগ হাইজ্যাক করবেন না

হয়ত বিশ্বজুড়ে কোন দুর্যোগ চলছে অথবা বড় কোন বিল্পব চলছে। আর সেজন্য সবাই একটা সাধারণ হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করছে। আপনি আপনার পণ্যের প্রসার বাড়ানোর জন্য সেই হ্যাশট্যাগটি সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিকভাবে আপনার পোস্টে ব্যবহার করলেন। এটা প্রচণ্ড বাজে একটা প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

সমালোচকদের সাথে সঠিক আচরণ করুন

সমালোচকরা আপনার সম্পদ। তাদের মতামত গুরুত্বের সাথে নিন। কেউ আপনার কাজের সমালোচনা করলে তার দিকে তেড়ে না গিয়ে তার কথা মনযোগ দিয়ে শুনুন এবং ভদ্রভাবে জবাব দিন। সে ভুল বুঝলে তাকে তা শুধরে নিতে সাহায্য করুন সুন্দরভাবে, কিন্তু কখনোই অসদাচরণ করা যাবে না। সে করলেও আপনি করবেন না! বরঞ্চ আপনার শান্ত ধীরস্থির আচরণ আপনাকে আরো বেশী গ্রহণযোগ্য করে তুলবে।

নিজের রিভিউ নিজে লিখবেন না

আপনি হয়ত ভাবতে পারেন যে আপনার নিজের মূল্যায়ন নিজেই করে একটু স্টার বাড়িয়ে নেওয়া যায় কিনা। কিন্তু এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। ধরুন আপনি কাউকে নিয়োগ দিলেন এ কাজ করার জন্য। সে ব্যক্তি একই ব্রাউজার থেকে একই আইপি দিয়ে বারবার রিভিউ দিল এবং শেষ পর্যন্ত কর্তাব্যক্তিরা তা টের পেয়ে একটা বাদে সব ডিলিট করে দিল। টাকাটা জলেই যাবে আপনার!

অকারণ লাইক ভিক্ষা কিংবা ফলো করতে বলা নয়


মানুষকে ফেসবুক পেজে লাইক আর টুইটারে ফলো করতে বলে বারবার বিরক্ত করা হিতে বিপরীত হতে পারে। মনে রাখবেন, দিনশেষে আপনার ইম্প্রেশনটাই আসল গ্রাহকের কাছে। তাই তাকে মনঃক্ষুণ্ণ করে আখেরে আপনার লাভ হবে না!

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আমাদেরকে যেমন এক সুতোর তারে গাঁথছে ঠিক তেমনিভাবে একজন আরেকজনের সম্পর্কে বিস্তারিত জানার সুযোগও করে দিচ্ছে। তাই এই ব্যাপারে সতর্ক হওয়া আমাদের সবার জন্যেই আবশ্যক। কারণ আপনার ভালোটা যেমনি মানুষ জানছে একইভাবে খারাপটা জানার সুযোগও তার থাকছে। তাই যথাসম্ভব সতর্ক থাকাই বুদ্ধিমানের কাজ।

হয়ে উঠুন একজন জনপ্রিয় উদ্যোক্তা

(Visited 397 times, 1 visits today)
1

Comments